কোন প্রিয় মানুষের সাথে দেখা করতে যাচ্ছেন! এই ভুলগুলি আপনিও করছেন না তো!

প্রিয়জনের জন্য মন ব্যাকুল হয়ে উঠলে তাকে না দেখে যেন থাকতেই ইচ্ছা করে না। আবার কখনো যদি এমন আবহাওয়া হয় যখন মাঝে মাঝে ঝিরঝির করে বৃষ্টি নামে, তখন আর নিজের মনকে কেই-ই বা বাঁধা দিতে পারে। তখন আপনি নিশ্চয় এমন পরিবেশে প্রিয়জনের সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন! আর এমন মুহূর্তগুলোকে আরো বেশী সুন্দর ও আকর্ষণীয় করতে যা যা করবেন তা জেনে নিন-

১) আপনি বৃষ্টিতে ভিজে গেলে বাড়িতে এসে ভালো করে গোসল করে নিন। তা না হলে বর্ষায় আপনার নানা ধরনের অসুখ হতে পারে। আর নিজেকে শুকনো রাখুন।

২) বৃষ্টির পানি চুলের জন্য খুবই ক্ষতিকর। তাই ভিজে গেলে চুল ধোওয়া খুবই জরুরি। সঙ্গে সপ্তাহে অন্তত ১দিন অবশ্যই চুলে তেল দেবেন। এতে চুলে গন্ধ হয় না এবং চুলে পুষ্টি থাকে।

৩) অন্যান্য সময়ের তুলনায় বৃষ্টির মৌসুমে সারা শরীরে স্ক্রাবিং করা খুবই জরুরি। তাই কাজটি করতে মোটেও ভুলবেন না।

৪) আপনি ঘেমে গেলে আপনার শরীরের টি-জোন এরিয়া যেমন কপাল, নাক, মুখ এবং চিবুকে ঘাম জমে যায়, যার ফলে আপনাকে ক্লান্ত দেখায়। তাই সবসময় অবশ্যই টিসু পেপার সঙ্গে রাখবেন। যা আপনার ত্বকের অতিরিক্ত তেল শুষে নেবে। আর আপনার চেহারা থেকে ক্লান্তি ভাব দূর করবে।

৫) সু-স্বাস্থ্যের জন্য নখের যত্ন নেওয়া খুবই দরকারি। নখে নোংরা ময়লা ব্যাকটেরিয়া জমে শরীরকে অসুস্থ করে দেয়। তাই নখ বড় হলে তা কেটে ফেলুন। অথবা নখ নিয়মিত পরিস্কার করুন।

৬) বর্ষাকালে খুব তাড়াতাড়ি ঠান্ডা লেগে যাওয়ার প্রবণতা থাকে। তাই এই সময়ে খুব সাবধানে থাকা প্রয়োজন।

৭) বর্ষায় জল-কাদা দিয়ে হাঁটা চলা করা থেকে বিরত থাকুন। নাহলে আপনার পায়ে ফাংগাল ইনফেকশন হতে পারে। এটি হলে পায়ের আঙ্গুলে প্রচুর ব্যাথা হয়।

৮) জুতো পরার সময়ে পায়ে হালকা পাউডার দিন, তাহলে ইনফেকশনের ভয় কম থাকবে। তাছাড়া কাঁদার ভিতর দিয়ে না হাটার চেষ্টা করবেন।

৯) এই সময়ে সবসময় শুকনো পোশাক পরবেন। কারণ ভেজা কিংবা নোংরা পোশাক আপনার ত্বকের বিভিন্ন অসুখের কারণ হতে পারে। তাআছাড়া আপনার ঠান্ডাও লাগতে পারে।

১০) বর্ষায় ঘামের দূর্গন্ধ থেকে নিজেকে দূরে রাখুন। বৃষ্টির পরে হিউমিডিটির কারণে শরীরে ঘাম জমে। যার ফলে শরীরের দূর্গন্ধ তৈরি হতে পারে। ভালো মানের ডিওডোরেন্ট বা পারফিউম ব্যবহার করুন। এছাড়া গোসলের সময় এন্টি-সেপ্টিক সাবান ব্যবহার করুন।