হাঙ্গর শিকার করতে যেয়ে চার যুবক নিজেরাই হয়ে গেল শিকার (ভিডিও)

জীবন্ত কোন কিছু নিয়ে এক চাঞ্চল্যকর ভিডিও তৈরী করে জনগণের আক্রোশের মুখে পড়েছে ফ্লোরিডার চার জন যুবক। তারা নিজেদের ছুটি কাঁটাতে যেয়ে এমন ঘটনা ঘটান। আর সেই মর্মান্তিক ঘটনার ভিডিও ফুটেজটি সাড়া ফেলেছে সারা বিশ্বে, এমনটিই জানা গেছে এমটিভি এর একটি বিশেষ প্রতিবেদনে।

একটি দাতব্য চিকিৎসাকেন্দ্রে কাজ করতো ২২ বছর বয়সী অ্যালেক্স। এমটিভির তথ্য অনুযায়ী উক্ত ঘটনার জেরে গত সোমবার তাকে ঐ প্রতিষ্ঠান থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। অ্যালেক্সের এমন কাজের জন্য তার কর্মক্ষেত্রেও ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়। এছাড়া জনসাধারণের নজরে খারাপ হওয়ার আগেই এমন সিদ্ধান্ত নেয় প্রতিষ্ঠানটি।

ঐ চার যুবকের মধ্যে একজনকে খুব সহজেই সনাক্ত করে পুলিশ। তার নাম পালমেট্টো। তার বাড়ি মানাতি এর কাউন্টি শহরে। তার বাড়িতে অতিরিক্ত সুরক্ষা দিয়েছে পুলিশ। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের পর পিটিশন দিয়ে জেলে প্রবেশ করানো হয়। এর পরে তার কাছ থেকে ৫০০০০ হাজার ডলারের একটি দলিলেও স্বাক্ষর করিয়ে নেওয়া হয়। এমনকি বন্যপ্রাণি বিষয়ক সরকারী কর্মকর্তা রিক স্কট গত রবিবার পুলিশের কাছে লিখিতভাবে একটি অভিযোগপত্র প্রদান করে। অভিযোগপত্রে তিনি লিখেছেন, “পশুর প্রতি এমন বর্বরতা এবং অসম্মান দেখানো সত্যিই বিরক্তিকর এবং আমি নিশ্চিত যে এই জঘন্যতম ব্যক্তিদেরকে উপযুক্ত শাস্তি প্রদান করা হবে।”

২০১৬ সালে একজন চিড়িয়াখানারক্ষীর গুলিতে একটি গরিলা এবং ২০১৫ সালে একজন শিকারীর তীরের আঘাতে একটি সিংহের মৃত্যুতে তোল্পাড় শুরু হয়েছিল পুরো সামাজিক মাধ্যম জুড়ে। আর এবারে এই সাংঘাতিক অপরাধটি পূর্‌বের সব কিছুকে ছাড়িয়ে গেছে। এবার তাহলে আসা যাক মূল ঘটনায়।

গত রবিবার ১১ সেকেন্ডের একটি ভিডিও আপলোড হয়। ভিডিওতে দেখা যায় যে একটি হাঙ্গরকে বেঁধে স্পিডবোটের পিছনে পিছনে টানতে টানতে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। আর শোনা যাচ্ছে সেই চার ব্যক্তির অট্টহাসি। যদিও ফ্লোরিডা মাছ এবং ওয়াইল্ডলাইফ কনজারভেশন কমিশন এ ভিডিও তদন্ত করছে, তবে ইতোমধ্যেই তারা তিনজন পুরুষের নাম সামাজিক মাধ্যমে প্রকাশ করেছে। তাদের একজন পো বেনাক নামক একজন মানাতি কাউন্টি কমিশনারের ছেলে।

আরো আশ্চর্যের বিষয় এই যে, তাদের একাউন্ট থেকে পআওয়া ছবিগুলোর মধ্যে একটিতে হাঙ্গর ও কুকুরের কাটা মাথার মধ্যে বিয়ার ঢালা হচ্ছে। এই মর্মান্তিক দৃশ্য দেখে স্তব্ধ সারা পৃথিবী। অনেক কথার মাধ্যমে এটিও উঠে আসে যে তারা হয়তো এর আগেও এমন কাজ করে থাকতে পারে। কিন্তু এমটিভির এই উদীয়মান তারকার উপর এমন কোন অভিযোগ প্রমাণিত হয়নি। তবে তার ভক্তরা নানাভাবে তাকে হেয় করেছেন সামাজিক মাধ্যমে। যার কারণে তারা শিকার করতে গিয়ে নিজেরাই এখন সবার ক্রোধের শিকার।

চলুন ভিডিওটি দেখে আসি ফক্স নিউজ এর অফিশিয়াল ইউটিউব চ্যানেল থেকে