এফ বি আই এজেন্টদের মতো ৫ মিনিটে মিথ্যাবাদীকে ধরে ফেলুন

বহু চরিত্রের মানুষ বৈচিত্র্যময় এ সমাজে রয়েছে । দৈনন্দিন জীবনে এসব মানুষ নানা কর্মকান্ডের সঙ্গে জড়িত। যারপরনাই অনেক মানুষই কোনো না কোনো মিথ্যা বলে যাচ্ছে। মিথ্যা বলার এ প্রবনতা এক প্রকারের ব্যাধিও বটে। অথচ কেউ কেউ এত সহজে মিথ্যা বলেন যে, ধরাই যায় না। কিন্তু ওই ব্যক্তির হাবভাব মুখভঙ্গি লক্ষ্য করলেই বোঝা যাবে ওই ব্যক্তি মিথ্যা কথা বলছেন। তাই জেনে নিন মিথ্যাবাদীকে চেনার সহজ কিছু কৌশল-

১। সংকোচবোধ করে নাঃ মিথ্যাবাদীরা খুব একটা সংকোচবোধ করেন না। কোনো মিথ্যাবাদী এমন মন্তব্য করে নিজের কথা স্পষ্ট করার চেষ্টা করেন। কিন্তু এ মন্তব্যের বিশ্বাসযোগ্যতা এর ফলে অনেকাংশে কমে যায়।

২। নিরপেক্ষ প্রশ্ন করুনঃ কিছু মৌলিক প্রশ্ন করে কেউ সত্য না মিথ্যা বলছে তা নির্ণয় করার চেষ্টা করুন। যেমন, কেউ সত্য বললে তিনি কী রকম আচরণ করেন তা জানতে চান। তারা কি দৃঢ়ভাবে দাঁড়িয়ে থাকে না কি কোনো একদিকে তাকিয়ে সত্য বলে? তাকে উত্তর দেওয়ার সময় অভয় দিন। যেন তিনি স্বতস্ফূর্তভাবে উত্তর দিতে পারেন।

৩। সাজিয়ে কথা বলেঃ যারা মিথ্যা বলেন তারা তুচ্ছ বিষয়কেও সাজিয়ে গুছিয়ে উপস্থাপন করেন, কিন্তু বহু গুরুত্বপূণ তথ্য লুকিয়ে ফেলেন। তথ্য অতিরঞ্জিত করাকে মিথ্যাবাদীরা নিরাপদ মনে করেন। কিন্তু শ্রোতা বিষয়টি বুঝতে পারেন। এ ক্ষেত্রে শ্রোতা সমস্ত তথ্য মনে রাখেন এবং পরে প্রশ্ন করেন। সত্য হলে আগের ও পরের মন্তব্যে কোনো তফাত থাকে না।

৪। শরীরী ভাষার দিকে দৃষ্টি রাখুনঃ কেউ সত্য না মিথ্যা বলছে তা জানতে তার শরীরী ভাষার দিকে দৃষ্টি রাখুন। মিথ্যা বলার সময় শরীরে কোনো প্রাঞ্জলতা থাকে না। গোটা শরীর তার সাবলীলতা হারায়। হাত পায়ের আঙুলে শক্তি থাকে না। কাঁধ কিছুটা কুচকে যায়।

৫। একই কথা বারবার বলতে থাকবেঃ যখন কেউ মিথ্যে কথা বলে আপনাকে বোঝানোর চেষ্টা করবে তখন সেই মিথ্যেটা নিজের মনের মধ্যে গেঁথে নেয়ার জন্য হলেও একই শব্দ বা বাক্য বারবার মুখে উচ্চারিত হয়ে যাবে। আর এই বারবার একই কথা বলার মূল কারণ হলো এর পেছনে সে ভেবে নিচ্ছে পরের কথাটি কীভাবে সাজিয়ে বলা যায়।

৬। মুখপানে চান: কারও মুখভঙ্গি দেখলে বোঝা যাবে সে সত্য না মিথ্যা বলছে। মিথ্যা বলার সময় মুখমণ্ডল তথা চেহারায় স্বাভাবিকতা থাকে না। মিথ্যা বলার সময় অনেকের মুখ কালচে রূপ ধারণ করে। কারও নাখে পরিবর্তন আসে। কেউ ঠোঁট কামড়ে ধরে। কারও আবার কপালে ভাঁজ পড়ে। কেউ আবার চোখে চোখ রেখে কথা বলতে পারে না।

৭।হুট করেই মাথার অবস্থান পরিবর্তন করে কথা বলবেনঃ আপনার একটি প্রশ্নের জবাবে হুট করে মাথার অবস্থান পরিবর্তন করে ফেলার অর্থ তিনি আপনাকে মিথ্যে বলছেন। ‘মাথা নিচু করে ফেলা, মাথা ঝাঁকিয়ে অন্য দিকে হেলানো ইত্যাদি এর অর্থ হচ্ছে তিনি মিথ্যে কথা বলছেন’, বলেন গ্লাস।

৮। বাক্য গঠনের দিকে খেয়াল রাখুনঃ কেউ সত্য না মিথ্যা বলছে- তা জানতে তার কথা বলার সুর খেয়াল করুন। মিথ্যা বলার সময় কথার সুরে বেশ পরিবর্তন আসে। মিথ্যা বলায় তারা হয় খুব দ্রুত অথবা আস্তে আস্তে কথা বলে। স্বর হয় উচ্চভঙ্গির নতুবা নিম্নভঙ্গির। বাক্যগুলো কঠিন হয়ে পড়ে। কারণ ওই সময় তারা ব্রেনকে দ্রুত কাজ করাতে চায়।

৯। অন্যকে দোষারোপ করেঃ কেউ যখন মিথ্যা বলে তখন তারা অন্যকে দিয়ে গল্পটা শুরু করে। নিজের দোষ আরেকজনের উপর চাপানোর চেষ্টা করে। প্রয়োজনে অন্য সম্পর্কে ইনিয়ে-বিনিয়ে কথা বলে।