নিজের অপহরণের নাটক সাজিয়ে ৬ মাসের জেল এক সুন্দরী তরুণীর

প্রেমিকা সঙ্গে থাকতে নিজের অপহরণের ভুয়ো গল্প ফেঁদে শেষে পুলিশের জালেই জড়ালেন বছর পঁচিশের তরুণী।

একটি ফরাসি আদালত বৃহস্পতিবার তাকে সাজা হিসেবে ছ’মাসের জেল এবং পাঁচ হাজার ইউরো (বাংলাদেশী টাকায় ৫ লক্ষ ৮৩ হাজার ৩৪২ টাকা) জরিমানা করেছে। কেন এমন করলেন এই ফরাসী তরুণী? তাঁর বয়ান শুনে রীতিমতো হতবাক পুলিশ প্রশাসন।

স্যান্ডি গিলার্ড নামে ওই তরুণী বসবাস করত ফ্রান্সের মেন্ডে শহরে। তিনি বিবাহ বিচ্ছেদের পর ওই শহরেরই এক তরুণের প্রেমে পড়েন এবং একই সঙ্গে থাকতেন। তবে বেশ কিছুদিন ধরেই তাঁর এই প্রেমিকের সঙ্গে নানা সমস্যা চলছিল স্যান্ডির। তাঁর প্রেমিকের কথায়, তৃতীয় কোনও এক ব্যক্তির সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন স্যান্ডি। হঠাৎই একদিন, তাঁর প্রেমিকে মেসেজ করে জানান, তাঁকে অপহরণ করা হয়েছে। একটি কালো গাড়িতে তুলে আততায়ীরা তাঁকে কোনও একটি অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে গিয়েছে। ঘটনাটি জানার সাথে সাথে পুলিশকে জানান ওই তরুণ।

এর পরের ঘটনা আরও চমকপ্রদ। তরুণীকে খুঁজে পেতে নাকাল হয় ফরাসি পুলিশ। শেষে বাধ্য হয়ে ৫০ জনের একটি সেনা দল মোতায়েন করা হয়। হেলিকপ্টারে চেপে গোটা এলাকা তল্লাশি চালায় ফরাসি সেনা। খোঁজ চালানো হয় আশপাশের শহরগুলিতেও। শেষে রহস্যের সমাধান করেন স্যান্ডি নিজেই। প্রকাশ্যে এসে তিনি জানান, অপহরণকারীরা তাঁকে ছেড়ে দিয়েছে। তাঁর কথায় অসঙ্গতি থাকায় সন্দেহ হয় পুলিশের। স্যান্ডিকে গ্রেফতার করে করে পুলিশ। জেরায় নিজের অপরাধ স্বীকার করেন তরণী। তিনি জানান, বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে ঝামেলার কারণে তাঁদের মধ্যে ছাড়াছাড়ি হয়ে গিয়েছিল। ফের একসঙ্গে থাকবেন বলেই এই কাণ্ড ঘটিয়েছেন তিনি।

স্যান্ডি আদালতকে জানান তাঁর নতুন প্রমিক প্রতারনার সঙ্গে জড়িত নয়।

গতকাল বৃহস্পতিবার স্যান্ডিকে ফরাসী আদালতে তোলা হয়। এই ভুয়ো নাটক এবং পুলিশ প্রশাসনকে নাকাল করার অপরাধে তাঁকে ৬ মাসের কারাদণ্ড দেয় আদালত।