আপনি কি জানেন আপনার ব্যবহৃত তোয়ালে আপনার স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরী করে!

আপনার তোয়ালের কি জীবন আছে? অনেকে ভাববেন এ কেমন প্রশ্ন? তোয়ালের কি জীবন থাকতে পারে? অবশ্যই না। কিন্তু নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটি স্কুল অফ মেডিসিন এর মাইক্রোবায়োলজিস্ট ফিলিপ টিয়ার্নো মনে করেন একটি স্যাতস্যাতে তোয়ালে একটি জীবন্ত জীব। এর কারণ হিসেবে তিনি দেখিয়েছেন যে একটি আদ্র তোয়ালেতে পারি, গরম তাপমাত্রা এবং প্রচুর পরিমানে অক্সিজেন থাকে যা একে রোগ জীবানুর বংশবৃদ্ধির আদর্শ স্থান করে তোলে। আদ্রতা থাকলে জীবানু থাকবেই। টিয়ার্নো বলেন “একটি তোয়ালে ধোয়ার আগে তিন বারের বেশি ব্যবহার করা উচিত নয় এবং প্রতিবার ধোয়ার পর এটি যাতে পুরোপুরিভাবে শুকায় তা নিশ্চিত করতে হবে।” তোয়ালে কেমন সময় ধরে ভেজা অবস্থায় রয়েছে এটি বোঝার সবচেয়ে সবজ উপায় হল গামছা। মাইক্রোবায়োলজিস্ট ফিলিপ টিয়ার্নোর মতে তোয়ালে থেকে কোন ধরনের গন্ধ অনুভূত হলে সেটি সাথে সাথে ধুয়ে শুকানো উচিত, কারন সেখানে গন্ধ সেখানেই জীবানু। তোয়ালে দিয়ে শরীরকে শুকানোর অর্থ হল আপনি নিজ হাতে ব্যাকটেরিয়াগুলিকে নিজের ত্বকে প্রতিস্থাপন করছেন যা আপনার গোসলের উদ্দেশ্যের সম্পূর্ণ বিপরীত।

অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায় যে পরিবারের একাধিক সদস্য একই তোয়ালে ব্যবহার করেন। মাইক্রোবায়োলজিস্ট ফিলিপ টিয়ার্নো মনে করেন এর থেকে বিভিন্ন রোগ্য ব্যাধির সংক্রমন সহ বিভিন্ন ধরনের ফোঁড়া, ফোষ্কা, ব্রণ, ইনফেকশন ইত্যাদি হতে পারে।

তবে এটিও সত্যি যে সব ব্যাকটেরিয়া আমাদের শরীরে পক্ষে ক্ষতিকারক নয়। এদের কিছু কিছু তো শরীরের দীর্ঘমেয়াদী বিভিন্ন উপকারে সহায়তা করে। হাইজিন হাইপোথেসিস নামীয় একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে কিছু ব্যাকটেরিয়া মানব শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বৃদ্ধি করে।

তারপরেও একটি গন্ধযুক্ত তোয়ালে আমাদের কারো কাছেই পছন্দের জিনিস নয়। বিশেষ করে তখন যখন আমরা জানছি যে এটি পরিপূর্ণ রয়েছে জীবানুদের জীবনধারনের উপযুক্ত স্থান।